Royalbangla
রয়াল বাংলা ডেস্ক
রয়াল বাংলা ডেস্ক

মাথাব্যথার তাৎক্ষণিক উপশমের উপায়

মাথাব্যথা

প্রাত্যহিক জীবনের খুব পরিচিত একটি সমস্যা মাথা ব্যথা। শরীরের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো মস্তিষ্ক। আর মাথাব্যথা শুরু হলে কোন ধরনের কাজই সুষ্ঠু ভাবে করা সম্ভব হয়না। বিভিন্ন পরিস্থিতিতে মাথায় যন্ত্রণা বেশ বিপত্তিতে ফেলে দেয় অনেককেই । কোন কিছুতেই মনোনিবেশ করা যায়না এবং প্রচন্ড অসুস্থতা বোধ হতে থাকে।
মাথাব্যথার কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া
মাথা ব্যথার সঙ্গে সঙ্গে আরো কিছু উপসর্গ দেখা দেয় যা অসুস্থতার মাত্রাকে আরো বাড়িয়ে দেয়-
* বমি বমি ভাব হওয়া
* হাত-পা অসাড় হয়ে যাওয়া
* দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যাওয়া
* শব্দ, আলো বা গন্ধ তীব্রতর ও বিরক্তিকর অনুভুত হওয়া
অনেক ধরনের কারণে মাথাব্যথা হতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে স্নায়বিক সমস্যা অথবা বড় ধরনের রোগের লক্ষণ হিসেবেও ঘন ঘন মাথায় যন্ত্রণা দেখা দিতে পারে। তাই অবশ্যই একে গুরুত্বের সঙ্গে দেখা উচিৎ। এখানে কিছু সাধারণ কারণে হওয়া মাথা ব্যথার চটজলদি কিছু সমাধান উল্লেখ করা হলোঃ
১। পর্যাপ্ত পানি পান করাঃ
মাথাব্যথা করার অন্যতম প্রধান একটি কারণ পানিশুন্যতা। শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দিলে মনোসংযোগের অভাব , বিরক্তি ভাব ও মাথায় যন্ত্রণা হতে পারে।
* চাহিদা অনুযায়ী পানির ঘাটতি পূরণ হলে সেক্ষেত্রে ৩০ মিনিটের মধ্যেই মাথা ব্যথা সেরে যায়।
* এ সমস্যা এড়িয়ে চলতে দিনে অল্প সময় অন্তর পানি পান করা উচিৎ ও প্রচুর পানি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করা উচিৎ।
২। পরিমিত ঘুমঃ
শরীরের ঘাটতি পুরনের জন্য পরিমিত ঘুম প্রয়োজন। এর অন্যথা হলে মাথা ব্যথা হতে পারে ।
* দৈনিক সুস্থ্য মানুষের ৬-৭ ঘন্টা ঘুম প্রয়োজন।
* মাথা যন্ত্রণা করলে চোখ বন্ধ করে নীরবে বিশ্রাম নেওয়া উচিৎ, এতে উপশম পাওয়া যায় দ্রুত।
* তবে অতিরিক্ত ঘুমও অনেক ক্ষেত্রে মাথাব্যথা সৃষ্টি করতে পারে।
৩। ঘাড় এবং কপাল মালিশ করাঃ
অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা বা মানসিক চাপের কারণে মস্তিস্কে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে, যা মাথা ব্যথার অন্যতম কারণ।
* এক্ষেত্রে ঘাড় ও কপাল আলতো করে মালিশ করলে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক হয় এবং আরাম অনুভুত হয়।
৪। ঠান্ডা বস্তুর স্পর্শ নেওয়াঃ
মাথায় ও ঘাড়ে বরফ বা অমন ঠান্ডা কিছু চেপে কিছুক্ষণ ধরে রাখলে তা রক্তসঞ্চালন ও মস্তিস্কের পেশি সমুহের রিলাক্স করতে সহায়তা করে। এটি বেশ দ্রুত ও কার্যকরী পদ্ধতি।
৫। উষ্ণ স্পর্শঃ
দুশ্চিন্তা জনিত কারণে অথবা সাইনাসের সমস্যার জন্য মাথায় যন্ত্রণা হয়ে থাকলে ঠিক উল্টো পদ্ধতি কাজে দেয়।
* এক্ষেত্রে উষ্ণ পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে ঘাড়, চোখ ও পায়ের গোড়ালিতে স্পর্শ করলে আরাম অনুভুত হয়।
* একেবারে হালকা গরম পানিতে গোসল করলে দ্রুত উপকার পাওয়া যায়।
৬। মুখ খোলা রেখে জোরে জোরে শ্বাস নেওয়াঃ
মস্তিস্কে অক্সিজেন এর স্বল্পতা মাথায় যন্ত্রণার সৃষ্টি করতে পারে। * আরাম করে বসে মুখ খোলা রেখে বড় বড় শ্বাস নিলে এই সমস্যার উপকার পাওয়া যায় এবং জলদি মাথাব্যথা ভালো হয়।
৭। যতটুকু সম্ভব নিরিবিলিতে থাকাঃ
যে কারনেই মাথা ব্যথা করুক না কেন তা স্নায়ুতন্ত্রের উপর প্রভাব ফেলে। অতিরিক্ত শব্দ স্নায়বিক চাঞ্চল্যতা আরো বাড়িয়ে তোলে তাই অবশ্যই নীরব স্থানে অবস্থান নেওয়া উচিৎ। এতে বেশ উপকার পাওয়া যায়।
৮। চা অথবা কফি পানঃ
চা ও কফিতে থাকা ক্যাফেইন সরাসরি মস্তিস্কের স্নায়ুতন্ত্রে প্রভাব ফেলে। আদা চা বা কফি পান তাই মাথাব্যথার বেশ কার্যকরী ওষুধ হিসেবে কাজ করে।
৯। অতিরিক্ত আলো থেকে দূরে থাকাঃ
মাথায় যন্ত্রণা করলে মস্তিস্ক ভীষণ আলোক সংবেদনশীল হয়ে পড়ে এবং দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আস্তে পারে। এ সময় আলোক সজ্জা থেকে দূরে থাকতে হবে এবং রোদে বাইরে বের হলে অবশ্যই রোদ চশ্মা ব্যবহার করা উচিৎ।
১০। চিবিয়ে খাওয়া খাবার গ্রহণ না করাঃ
মাড়িতে চাপ প্রয়োগ করে খাবার খাওয়ার সময় মস্তিস্কের পেশির উপরেও প্রভাব পড়ে। এতে মাথা ব্যথা বেড়ে যেতে পারে । তাই তরল খাবার গ্রহণ করা উচিৎ ঐ সময়ের জন্য।
  1. royalbangla.com এ আপনার লেখা বা মতামত বা পরামর্শ পাঠাতে পারেন এই এ‌্যড্রেসে royal_bangla@yahoo.com
পরবর্তী পোস্ট

জেনে নিন থাইরয়েড সমস্যায় ওষুধ খাওয়ার সঠিক নিয়ম


আক্কেল দাঁত কখন এবং কেন ফেলতে হয়?

ডা: এস.এম.ছাদিক,ওরাল এন্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারী
সাধারণত আক্কেল দাঁত সম্পূর্ণভাবে উঠার সময় হলো ১৭-২৫ বছর বয়স । কিন্তু ১৭-২০ বছর বয়সের মধ্যেই বুঝা যায় আক্কেল দাঁত সঠিকভাবে উঠবে কি না।....
বিস্তারিত

শালগম এর উপকারীতা

পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন,পুষ্টি কর্মকর্তা
শালগম অত্যন্ত পুষ্টিকর খাদ্য হিসেবে সুপরিচিত। ভিটামিন এ, সি এবং ভিটামিন কে তে ভরপুর থাকে শালগম। শালগমের সবচাইতে ভালো দিক হচ্ছে এদের ক্যালরি খুব কম থাকে। নিয়মিত শালগম খাওয়ার কিছু কারণ সম্পর্কে জেনে নিই চলুন।........
বিস্তারিত

সাইনাস আর সাইনুসাইটিস, আসুন সহজে বুঝে নিই.

ডা: এস.এম.ছাদিক,ওরাল এন্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারী
স্বাভাবিক নিশ্বাস নিতে মনে হয় নাকে কি যেনো আটকে আছে,, আবার নাক দিয়ে পানিও পড়ে। গায়ে হালকা জ্বর ও আছে, আবার সাথে মাথা ব্যাথা। তিনি ডাক্তারের কাছে গেলেন, ডাক্তার বললেন, আপনার সাইনুসাইটিস হয়েছে,........
বিস্তারিত

গর্ভাবস্থায় কি চা-কফি পান করা যায়?

ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা) ,Consultant Sonologist
চা ও কফি আপনাদের অনেকেরই প্রছন্দের পানীয়। তাই গর্ভাবস্থায়ও খেতে চান, তাই না? এ ক্ষেত্রে আমাদের জানা উচিত এই পানীয় পান করা যাবে কি না, গেলে কতটুকু করা যাবে।......
বিস্তারিত

বাচ্চাদের ফল ও সবজি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলবেন কিভাবে?


পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন।বিএসসি (সম্মান), এমএসসি (প্রথম শ্রেণী) (ফলিত পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তি)

মহিলাদের ইনফার্টিলিটি দূর করার ক্ষেত্রে ডিম্বাণুর গুণাগুণ কেন গুরুত্বপূর্ণ?


ডাঃ হাসনা হোসেন আখী,এমবিবিএস, বিসিএস (স্বাস্থ্য),এমএস (অবস এন্ড গাইনী)

কিডনী সিস্ট কতটা ঝুঁকিপূর্ণ ?


ডাঃ মোহাম্মদ ইব্রাহিম আলী,এম.বি.এস,বিসিএস (স্বাস্থ্য) ,এমএস (ইউরোলজি)

শিশুদের ডায়েট কেমন হওয়া উচিত ?


নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী,Bsc (Hon's) Msc (food & Nutrition)

লিভারের সুস্থতায় কি করবেন?


নুসরাত জাহান, ডায়েট কনসালটেন্ট

অনিয়মিত পিরিয়ডের কারণ , চিকিৎসা ও ঘরোয়া প্রতিকার


ডাঃ হাসনা হোসেন আখী