Royalbangla
Dietitian Shirajam Munira
Dietitian Shirajam Munira

সিজনাল ঠান্ডা নিয়ন্ত্রণের উপায় কি ?

পুষ্টি


  1. আমি সবসময় বলি রোগ হওয়ার আগে সাবধান থাকতে।এখন সময় ভালো না,ঠান্ডা জ্বর কাশি মানেই করোনার কথা মাথায় আসে।তবে ঘাবড়াবেন না।ভয় ও স্ট্রেস মানুষকে দূর্বল করে দেয়।তাই মনকে আগে শক্ত রাখা জরুরী।
    আমি আজ সর্দি কাশি ঠান্ডার উপশম নিয়ে আলোচনা করবো ও একই সাথে পূর্ব প্রস্তুতি কী নেয়া যেতে পারে তা ব্যাখ্যা করবো।
    চলুন জেনে নেয়া যাক কী খেতে হবে ও কী করতে হবে?
  2. এক
    মধু
    ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণের কারণে গলা ব্যথা হতে পারে।মধু অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল সমৃদ্ধ যা এই ধরণের সংক্রমণ পরিষ্কার করতে সহায়তা করে।বাচ্চাদের কাশি চিকিৎসায় মধু কার্যকর।যদিও ১২ মাসের কম বয়সী শিশুদের দেওয়া উচিত নয়।
    গবেষকরা আবিষ্কার করেছেন যে মধু ডিফিনহাইড্রামাইন এবং সালবুটামলের চেয়ে বেশি কার্যকর যা প্রায়শই কাশির ওষুধে ব্যবহৃত ড্রাগ হিসেবে।তাই সর্দি কাশি ঠান্ডাতে মধু কিন্তু দারুণ উপকারী।
  3. দুই
    আদা
    একজন ব্যক্তি যদি এক কাপ গরম পানিতে ১-২ চা চামচ তাজা আদা দিয়ে সাথে অল্প মধু দিয়ে খেতে পারেন তবে ঠান্ডা অনেকাংশে কমে যাওয়া সম্ভব।কারন আদাতে থাকা জিঞ্জারেল এবং শাওগেল নামক উপাদান রাইনোভাইরাস ধ্বংস করতে সহায়তা করে। এর ফলে ঠান্ডা লাগার ঝুঁকি কমে যায়। তাই সুস্থ্য থাকতে খাদ্য তালিকায় আদা যোগ করা ভালো।
  4. তিন
    ডাবের পানি
    ডাবের পানিতে সোডিয়াম এবং পটাসিয়ামের মতো খনিজ অনেক বেশি।এগুলি ডায়রিয়া বা বমি বমিভাবের পরে শরীরকে দ্রুত পুনরায় হাইড্রেট করতে সহায়তা করতে পারে।একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে ডাবের পানি একটি স্পোর্টস ড্রিঙ্কের মতো একই স্তরের হাইড্রেশন সরবরাহ করতে পারে।এটি আরও স্বাস্থ্যকর, এতে কোনও চিনি যুক্ত নেই।তাই ঠান্ডার সাথে পেট খারাপ হলে ডাবের পানি খেতেই পারেন।
  5. চার
    চিকেন স্যুপ
    মুরগির স্যুপকে কয়েকশ বছর ধরে সাধারণ ঠাণ্ডার প্রতিকার হিসাবে সুপারিশ করা হয়।এটি ভিটামিন, খনিজ, ক্যালোরি এবং প্রোটিনের খাওয়ার একটি সহজ উৎস যা আপনি অসুস্থ থাকাকালীন আপনার দেহের প্রচুর পরিমাণে পুষ্টির যোগান দেয়।মুরগির স্যুপ তরল এবং ইলেক্ট্রোলাইটের একটি দুর্দান্ত উৎস,ঠান্ডায় পেট খারাপ হলে শরীরের পানিশুন্যতা রোধে সাহায্য করে।একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে মুরগির স্যুপ কফ সাফ করার ক্ষেত্রে বেশ কার্যকর। কারন এতে প্রাকৃতিক ডিকনজেস্ট্যান বিদ্যমান।এছাড়াও মুরগীর স্যুপে থাকা নিউট্রোফিল কাশি থেকে মুক্তি দেয়।অতএব মুরগীর স্যুপ হচ্ছে সুপার ফুড ঠান্ডাজনিত রোগে।
  6. পাঁচ
    ভেষজ চা
    ঠান্ডা এবং ফ্লু উপসর্গগুলি অনুভব করার সময়, হাইড্রেটেড থাকা জরুরী।ভেষজ চা সতেজ হয় এবং তাদের বাষ্পে শ্বাস-প্রশ্বাস সাইনাস থেকে কফ পরিষ্কার করতে সহায়তা করে।
    এক কাপ গরম পানিতে একটু হলুদ যোগ করা গলা ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করতে পারে।গবেষণা থেকে জানা যায় যে হলুদে প্রদাহবিরোধী এবং এন্টিসেপটিক উভয় বৈশিষ্ট্য রয়েছে।এছাড়াও আদা চা,সজনে পাতার চা অথবা লবঙ্গ দিয়ে লাল চা ও বেশ উপকারী ঠান্ডার জন্য।তবে দুধ চা ক্ষতিকর।
  7. ছয়
    রসুন
    রসুন সব ধরণের স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান করতে পারে। এটি বহু শতাব্দী ধরে ঠান্ডার ঔষধি হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে এবং এটি অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টি-ফাংগাল সম্পন্ন যা ইমিউন সিস্টেমকে জাগ্রত করে।গবেষণায় দেখা গেছে রসুন গ্রহণকারী ব্যক্তিরা কেবল কম সময়েই অসুস্থ হয়ে পড়ে না।তাই রসুন গ্রহণ করতেই পারেন। একটি চমৎকার খাবার হতে পারে মুরগির স্যুপ বা ঝোলগুলিতে রসুন যুক্ত করা যা ঠান্ডা বা ফ্লুর লক্ষণগুলির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আরও কার্যকর করবে।
  8. সাত
    সবুজ শাকসবজি
    সবুজ শাকসবজি ঠান্ডার অনেক বড় ঔষধ।উদাহরণ হিসেবে পালংশাক ও ব্রকলির গুনাগুন টা দেয়া হলো

  9. পালং শাক
    পালং শাক শরীরের সংক্রমণ বিরোধী শক্তি বাড়ায় এবং এর ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে, ফলাফল হিসেবে শরীর সুস্থ্য থাকে সবসময়।

  10. ব্রকলি
    এই খাদ্যটিও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। ব্রকলি উচ্চ আঁশ ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এবং এটা শীতকালের পুষ্টিকর খাবার হিসেবেও খাদ্যতালিকায় নিয়মিত রাখা যায়।
    তবে সবুজ শাকসবজির পুষ্টিগুণ ঠিক রাখতে কম তাপে রান্না করতে হবে।
  11. আট
    সিদ্ধ গাজর
    গাজরকে বলা হয় সুপার ফুড। গাজরের ভিটামিন ও মিনারেলস দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।তবে ঠান্ডা লাগলে কাঁচা গাজর না খেয়ে সেদ্ধ করেই খাওয়া উচিত।
  12. নয়
    ভিটামিন সি
    সকল সমস্যারই একটি সমাধান আছে, আর তার যথার্থ প্রমাণ পাওয়া যায় প্রকৃতির কাছেই। ঠান্ডা কাশির সমস্যা ও তার সমাধান ও পাওয়া যায় এই সাইট্রাস জাতীয় ফল থেকে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার রক্তে শ্বেত রক্তকণিকার পরিমাণ বাড়ায় এবং ঠান্ডা নিরাময়ে অবদান রাখে। এধরনের ফলের মধ্যে কমলা,লেবু ,আমলকি,পেয়ারা ইত্যাদি উল্ল্যেখযোগ্য।
  13. দশ
    হলুদ
    এতে বিদ্যমান কারকিউমিন একটি শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি যৌগ। এছি অ্যান্টিবডি প্রতিক্রিয়া বাড়িয়ে তোলে।তবে হলুদের কার্যকারিতা বাড়াতে হলুদের সাথে কালো মরিচ একত্রিত করার বিষয়টি নিশ্চিত করুন,তারা ২জন মিলে আপনার ঠান্ডাকে ভাগাবে।
  14. এগার
    প্রচুর ভিটামিন ডি
    গবেষণায় দেখা গেছে, যাদের ভিটামিন ডির অভাব হয়, তাদের সর্দি-কাশিতে কাবু করে বেশি।শরীরে ভিটামিন ডি থাকলে তা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়তে সাহায্য করে।ডি জাতীয় খাবার-ডিমের কুসুম,কলিজা,দুধ ইত্যাদিতে পাওয়া যায়।তবে শুধু খাবার থেকে যথেষ্ট ভিটামিন ডি পাওয়া যায় না।সূর্যের আলোতে থাকতে হবে।সকাল ১১টা থেকে বেলা ৩টার মধ্যে সপ্তাহে দুই দিন কেউ যদি অন্তত ২০- ৩০ মিনিট সূর্যালোক গায়ে মাখে, তবে তা যথেষ্ট।এরপরো ডি সাপ্লিমেন্টস প্রয়োজন হয়,সেক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
  15. বার
    দই
    প্রতি কাপে ১৫০ ক্যালোরি এবং ৮গ্রাম প্রোটিন রয়েছে।এছাড়াও দই ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ এবং অন্যান্য ভিটামিন এবং খনিজ পূর্ণ।
    কিছু দইয়ে উপকারী প্রোবায়োটিকও থাকে।
    প্রমানগুলি দেখায় যে প্রোবায়োটিকগুলি শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্ক উভয়কেই ঠান্ডাজনিত অসুস্থতা হলে দ্রুত নিরাময় করতে পারে এবং তাতে করে কম অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ করা হয়।
    একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে প্রবায়োটিক গ্রহণকারী শিশুরা গড়ে দুই দিনের দ্রুততর ভাল অনুভব করেন।তাই দই গ্রহণ করুন,তবে একদম ফ্রিজে থাকাটা নয়।নরমাল করে খেতে হবে।ঠান্ডা খাওয়া যাবেনা।
  16. তের
    বাদাম
    অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি খাবার।এছাড়াও বাদামে বেশ কয়েকটি পুষ্টি রয়েছে যা ভিটামিন ই এবং বি৬,জিংক এবং ফোলেট যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে।মানসিক চাপ কমাতে গবেষণায় বাদামকে দেখানো হয়েছে।আমরা অনেকেই জানিনা যে স্ট্রেস রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল করে দেয়।তাই বাদাম খেতে কিন্তু ভুলবেন না!তবে ঠান্ডা লাগার আগে খেতে হবে।ঠান্ডা যদি লেগে যায় সেক্ষেত্রে বাদামকে পরিহার করতে হবে।
    সবশেষে গরম পানির গার্গল করবেন,যদি ঠান্ডা লাগে।ঠান্ডা না লাগলে গরম পানি খাওয়ার কোনো দরকার নেই।
    এবার নিশ্চয়ই বুঝেছেন এই ঠান্ডা পরবর্তী ও ঠান্ডা পূর্ববর্তী নির্দেশনা কী মানতে হবে।আশা করি আপনাদের এই গাইডলাইন কাজে দিবে।
    লেখক পুষ্টিবিদ সিরাজাম মুনিরা
    কনসালটেন্ট ডায়েটিশিয়ান
    ইবনেসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও কেয়ার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
  1. royalbangla.com এ আপনার লেখা বা মতামত বা পরামর্শ পাঠাতে পারেন এই এ‌্যড্রেসে [email protected]
পরবর্তী পোস্ট

নরমাল ডেলিভারির জন্য টিপস


পরিবারকে সময় দিন

ডা: অনির্বাণ মোদক পূজন,হৃদরোগ, বাতজ্বর ও উচ্চ রক্তচাপ রোগ বিশেষজ্ঞ
খুব ব্যস্ত আপনি, ব্যস্ততা ছাপিয়ে কখন একটু বিশ্রাম নেবেন, সেই ফুসরত খুঁজতেই আপনি ক্লান্ত। অফিস থেকে বাসা, আবার বাসা থেকে সেই অফিস। অফিসেও তো কাজের চাপ আর অশান্তির কোনো শেষ নেই।......
বিস্তারিত

গর্ভাবস্থায় ওজন বৃদ্ধি।।

ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা),Consultant Sonologist
গর্ভাবস্থা হল শরীরের মধ্যে পরিবর্তনের একটি সময়। শিশুর বৃদ্ধি, প্ল্যাসেন্টা এবং শিশুর চারপাশে তরল (অ্যামনিয়োটিক ফ্লুইড) থাকার কারণে গর্ভাবস্থায় কিছু ওজন বৃদ্ধি হওয়া স্বাভাবিক।.........
বিস্তারিত

সিজারিয়ান (সি-সেকশনে) ডেলিভারি কি ? কেন?

ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা),Consultant Sonologist
সি-সেকশনের মাধ্যমে ডেলিভারি এক এক অঞ্চলে এক এক রকম। তবে গড়ে বিশ্বব্যাপী ১৫% জন্ম সি-সেকশনের মাধ্যমে হয়ে থাকে। ল্যাটিন আমেরিকা এবং ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে এই হার সর্বোচ্চ (২৯.২%).......
বিস্তারিত

ডাউন্স সিন্ড্রোম!

নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী
এই হরমোন আমাদের ক্ষুধা কে নিয়ন্ত্রন করে।কিছু কিছু ডাটা দেখাচ্ছে যে এই হরমোন ডাউন্স সিন্ড্রোমিক চাইল্ড দের বেড়ে যাওয়ার কারনে তাদের এই ক্ষুধার নিয়ন্ত্রন থাকে না যা অবেসিটির ঝুকিতে ফেলে দেয়।.....
বিস্তারিত

ড্রিপ্রেশন ম্যানেজমেন্টে পরিবার বা প্রিয়জনের ভূমিকা

জিয়ানুর কবির,ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিষ্ট
ডিপ্রেশনের চিকিৎসায় মেডিসিন ও সাইকোথেরাপী দুই ধরনের চিকিৎসা পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়। বিষন্নতার মাত্রা অল্প হলে শুধুমাত্র সাইকোথেরাপি দিয়ে চিকিৎসা করলে ভালো হয়ে যায়।....
বিস্তারিত

ডায়াবেটিক পেশেন্ট কি উপায়ে তরমুজ খাবেন

পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু
ঋতু হিসেবে গ্রীষ্মকাল অনেকের পছন্দের তালিকায় থাকে। গ্রীষ্মকালের অন্যান্য বৈশিষ্ট্যের মধ্যে একটি চমৎকার বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এই মৌসুমে পুষ্টিগুণে ভরপুর সব মুখরোচক ফল .....
বিস্তারিত

হাত- পা জ্বালাপোড়া

ডা. মুহম্মদ মুহিদুল ইসলাম,সায়েন্টিফিক অফিসার
চেম্বারে অনেক রোগী আসেন যাদের সমস্যা হাত-পা জ্বালাপোড়া। কেউ কেউ বলেন হাত-পা ঝিমঝিম করে,হাত পা টানে,খোচাখোচা অনুভূতি হয়।মোটা দাগে এগুলো সব নার্ভের সমস্যা যাকে Peripheral Neuropathy.....
বিস্তারিত

কেমন হবে মাহে রমজানের খাবার ব্যাবস্থাপনা

পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন,পুষ্টি কর্মকর্তা
মাহে রমজানে বিশ্বের সকল দেশের মুসলিমগন হরেক রকমের খাওয়া দাওয়ার আয়োজন করে থাকেন। কিন্তু আমাদের ভোজন রসিক বাঙালির খাওয়া দাওয়ার পারদ টা....
বিস্তারিত

রমজান মাসের স্বাস্থ্য সতর্কতা:

Colorectal Care Dr. Md Ashek Mahmud Ferdaus
রমজান মাস মুসলমানদের একটি পবিত্র মাস। সওয়াবের মাস। এবাদত বন্দেগী ও সংযমের মাস। এ মাস আল্লাহ পাকের রহমত ও বরকতের মাস। রোযা আমাদের প্রতিটি কাজে সংযমের শিক্ষা দেয়।......
বিস্তারিত

দাম্পত্য জীবন সুখি করবেন কিভাবে??

জিয়ানুর কবির,ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিষ্ট
বর্তমানে প্রাকটিসে প্রায় দম্পতিরা সমস্যা নিয়ে আসেন। কোন সময় একজন এসে তার সঙ্গীর সমস্যা বলতে থাকেন। আবার কখনো দুজনই একসাথে আসেন।.....
বিস্তারিত

খালিপেটে নাকি ভরাপেটে খাবেন ঔষধ!!

ডা. মুহম্মদ মুহিদুল ইসলাম,সায়েন্টিফিক অফিসার
আজকাল অনেক চিকিৎসক ই আছেন রোগী কে সুন্দর করে প্রেস্ক্রিপশন বুঝিয়ে বলে দেন।এতে রোগী যেমন রোগ সম্পর্কে সচেতন হয় তেমনি ঔষধ গুলো বুঝে নিলে চিকিৎসক এর নির্দেশনা মেনে খেতে পারে।....
বিস্তারিত

শিশুর অতিরিক্ত প্রোটিন গ্রহনের কুফল

নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী,
ইদানীং শিশুদের কে চাহিদার অতিরিক্ত প্রোটিন গ্রহন করতে দেখা যাচ্ছে। যার ফলে শিশু নানা রকম স্বাস্থ্য ঝুকিতে পড়ে যাচ্ছে যা মারাত্মক আকার ধারন করার আগেই আমাদের সচেতন হওয়া প্রয়োজন।....
বিস্তারিত

ডালিম বা বেদানায় কতখানি আয়রন?


ডাঃ গুলজার হোসেন ,বিশেষজ্ঞ হেমাটোলজিস্ট

হৃদরোগের ঝুঁকি কমিয়ে সুরক্ষিত থাকুন


পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু,নিউট্রিশনিস্ট

স্মার্টফোনে আসক্তি কমাতে করণীয়


ডা: অনির্বাণ মোদক পূজন,হৃদরোগ, বাতজ্বর ও উচ্চ রক্তচাপ রোগ বিশেষজ্ঞ

মাউথ আলসার কি? কেন হয়?


ডা: এস.এম.ছাদিক,ওরাল এন্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারী

এনোমালি স্ক্যান (Anomaly Scan) কি এবং এই স্ক্যান করার প্রয়োজনীয়তা কতটুকু?


ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা) ,Consultant Sonologist

বাধাকপি


পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন,পুষ্টি কর্মকর্তা

ডিপ্রেশন একটা মানসিক রোগ


জিয়ানুর কবির,ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিষ্ট

Stop bullying plz - ফেসবুকে বাজে কমেন্টস এবং বাস্তব জীবনে মানুষকে হেয় করে গাল-মন্দ করা বন্ধ করুন


নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী,Bsc (Hon's) Msc (food & Nutrition)

অকাল গর্ভপাতের ৬ কারণ


ডাঃ হাসনা হোসেন আখী,এমবিবিএস, বিসিএস (স্বাস্থ্য),এমএস (অবস এন্ড গাইনী)

সুস্থতায় নিয়মানুবর্তিতা: যেসব নিয়ম মেনে চললে দীর্ঘদিন সুস্থ থাকা যায়


পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু

বাচ্চার আদর্শ খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলতে যা করা উচিত এবং যা করা উচিত নয়


নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী,Bsc (Hon's) Msc (food & Nutrition)

সুপারবাগ: মানবজাতির জন্য কতটা ভয়ংকর?


ডাঃ গুলজার হোসেন ,বিশেষজ্ঞ হেমাটোলজিস্ট

আত্মহত্যা প্রতিরোধে আমাদের যা করা উচিত


ডা. ফাতেমা জোহরা , মনোরোগ, যৌনরোগ ও মাদকাসক্তি নিরাময় বিশেষজ্ঞ

গর্ভধারণ এবং স্তন ক্যান্সার পর্ব ১


ডাঃ লায়লা শিরিন,অধ্যাপক, ক্যান্সার সার্জারী, জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল।

ইউরিক এসিড জনিত সমস্যায় কি করণীয় জেনে নিন


ডা: অনির্বাণ মোদক পূজন,হৃদরোগ, বাতজ্বর ও উচ্চ রক্তচাপ রোগ বিশেষজ্ঞ

হাইপোথাইরয়েডিজম (Hypothyroidism)- গর্ভবতী মা ও অনাগত শিশুর উপর এর প্রভাব


ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা) ,,Consultant Sonologist

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কিভাবে বাড়াবেন?


পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন

ফিটাল প্রেজেন্টেশন ও নরমাল ডেলিভারি।


ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা)

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যসম্মত বৈজ্ঞানিক ও যৌক্তিকভাবে যা করণীয়


ডাঃ হাসনা হোসেন আখী

বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে করণীয়


Royalbangla desk

পরিবারের / খুব কাছের মানুষ ক্যান্সার আক্রান্ত? কি করবেন? পর্ব ৩


ডাঃ লায়লা শিরিন

পাইলস কি ? কখন অপারেশন করাতে হয় ? কিভাবে ভাল থাকা যায়?


ডাঃ মোঃ মাজেদুল ইসলাম

কোষ্ঠকাঠিন্যঃ আছে সহজ সমাধান।


ডাঃ স্বদেশ বর্মণ

নরমাল ডেলিভারি না সিজার করাবেন?


ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা)