loading...









loading...

Royalbangla
ডাঃ মোঃ আশেক মাহমুদ ফেরদৌস
ডাঃ মোঃ আশেক মাহমুদ ফেরদৌস

কোরবানীতে পাইলস ও ফিসারের সতর্কতা:

পাইলস

পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু
পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু

কিভাবে স্বাস্থ্যস্মত উপায়ে ইদের খাবার উপভোগ করবেন ❓

ডায়েটিং

পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন
পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন

কেমন হবে আপনার ঈদের খাবার ব্যবস্থাপনা

সুপারফুড

পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু
পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু

ত্বকের সমস্যায় উপকারী জাম

ত্বকের যত্ন

কোরবানি মুসলমানদের একটি পবিত্র এবাদত। কোরবানি করা হয় মহান আল্লাহ পাকের সন্তুষ্টির জন্য। কোরবানি আমাদের ত্যাগের শিক্ষা দেয়। কিন্তু কোরবানির সময় আমাদের দৈনন্দিন খাদ্যাভ্যাসে কিছুটা পরিবর্তন হওয়ায় নানা রকম সমস্যায় পড়তে হয়। তারপর আছে তীব্র গরম। শরীরে হবে পানিশূন্যতা । আঁশযুক্ত খাবার খাওয়া হবে কম। ফলে এ সময় কোষ্ঠকাঠিন্য হবে বেশী। আর কোষ্ঠকাঠিন্যর জন্যই আমরা পায়ুপথ ও মলদ্বারের সমস্যায় ভুগি বেশী।

আর এ কারণেই এই কারণেই কোরবানির সময়ে পায়ুপথ ও মলদ্বারের সমস্যাগুলো বেশী হয়। এ সমস্যাগুলোর মাঝে সবচেয়ে বেশী হয়

• কোষ্ঠকাঠিন্য,

• মলদ্বার দিয়ে রক্ত যাওয়া, ও

• মলদ্বারে ব্যথা হওয়া।

অধিকাংশ মানুষই এই সমস্যায় ভোগে। আমাদের একটু সচতেনতাই এই সমস্যাগুলো থেকে মুক্তি দিতে পারে।

কি সমস্যা হয়? পাইলস হলে-

• পায়খানার সাথে অথবা আগে বা পরে রক্ত যাবে।

• রক্ত একদম তরতাজা যাবে।

• ফুটা ফুটা হয়ে রক্ত যাবে অথবা পিচকারি দিয়ে যাবে।

• অনেক সময় শক্ত পায়খানা হলে পায়খানার গায়ে লাগানো থাকবে বা টিস্যু পেপারে রক্তের দাগ লাগানো থাকবে কিন্তু কোন ব্যথা সাধারনত থাকে না।

ফিসার হলেও—

• রক্ত যাবে কিন্তু খুবই অল্প পরিমানে যাবে।

• ফুটা ফুটা হয়ে যাবে না।

• পায়খানার গায়ে লাগানো থাকবে অথবা টিস্যু পেপারে রক্তের দাগ লাগানো থাকবে।

• কিন্তু প্রচণ্ড ব্যথা হবে।

• টয়লেট করতে ভয় হবে ব্যথার কারনে।

সমাধান কি?

অথচ আমরা একটু সাবধান হলে , খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করলে ও নিয়ম কানুন মেনে চললে আমরা খুব সহজেই এ সমস্যা গুলো এড়িয়ে চলতে পারি। তাই এই সময় আমাদের খাদ্যতালিকায় আনতে হবে কিছু পরিবর্তন।

• বেশী করে পানি খান ,বেল অথবা পেঁপের শরবত খান।

• প্রয়োজনে ঈসপগুলের ভুষি পানিতে ভিজিয়ে লেবু চিপে শরবত করে খাবেন।

• মৌসুমি ফলমূল যেমন আম, জাম, পেয়ারা বেশী বেশী খান।

• আঁশযুক্ত খাবার যেমন- শাক সবজি,ফলমূল বেশি খাবেন,মাংশ কম খাবেন।

• বেশি মসলাযুক্ত, ঝাল ও চর্বি জাতীয় খাবার খাবেন না।

• পানি বেশি খাবেন, সফট ড্রিংকস খাবেন না।

• নিয়মিত টয়লেট /মলত্যাগ করবেন।

• অপ্রয়োজনে অধিক সময় টয়লেটে বসে থাকবেন না।

• প্রয়োজনে পায়খানা নরমকারক ঔষধ খান।

• পায়খানা নরম রাখুন।

• বল প্রয়োগ করে পায়খানা করবেন না।

লেখক

ডাঃ মোঃ আশেক মাহমুদ ফেরদৌস
FCPS(surgery) FISCP(India) Ms(Colorectal Surgery) Bangabandhu Sheikh Mujib Medical Univarsity
Chamber:
নেক্সাস হাসপাতাল-ঢাকা রোড - ময়মনসিংহ
Contact:01796586561
www.facebook.com/Colorectal-Care-Dr-Md-Ashek-Mahmud-Ferdaus-911427482298482

গত বারের মতন এবারও করোনাকালীন সময়ে পবিত্র ইদ-উল-আজহা বা কোরবানির ইদ উদযাপীত হবে। ইদ মানেই আনন্দ তবে করোনা পরিস্থিতিতে ইদ আর দশটি ইদ থেকে ভিন্ন। তাই সর্বোচ্চ সচেতনতার সাথে আমাদের পালন করতে হবে ইদ উৎসব। কোরবানির পশু জবাই থেকে শুরু করে সংরক্ষণ পর্যন্ত সবক্ষেত্রেই স্বাস্থ্যবিধি এবং হাইজিন মেনে চলা অত্যন্ত জরুরি। সংক্রমণ এড়াতে এ বিষয় গুলি যথাযথ ভাবে পালন করা গেলে আমরা উৎসবমুখর পরিবেশে ঝুঁকিমুক্ত হয়ে ইদ উদযাপন করতে পারবো।

ইদে আনন্দময় পরিবেশে প্রধান অনুষঙ্গ হলো ইদের খাবার। ইদের আনন্দকে বহুগুণ বাড়িয়ে তুলতে ইদের দিনগুলোতে নানা পদের মজাদার খাবারের আয়োজন করা হয়ে থাকে। হরেক রকম খাবারের সমারোহ থাকে সবার বাড়িতে। আর কোরবানির ইদে অন্যান্য খাবারের মধ্যে সবথেকে প্রাধান্য পায় মাংসের বিভিন্ন পদ৷ কোরবানির ইদে গরু, খাসি, মহিষ এমনকি উট উৎসর্গ করা হয় আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায়। স্বভাবতই এ সময় তাই মাংস তথা লাল মাংস খাওয়া হয় অন্যান্য সময় থেকে বেশি। ইদ উৎসবকে উপভোগ যেমন করতে হবে তেমনি খেয়াল রাখতে হবে স্বাস্থ্যের দিকে। সঠিক উপায়ে না খেলে দেখা দিতে পারে বিভিন্ন ধরনের জটিলতা যেটা আপনার ইদের আনন্দকে অনেকটাই ম্লান করে দিতে পারে। এছাড়া যারা বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগছেন তাদের বিশেষ সতর্কতার সাথে খাবার গ্রহণ করা প্রয়োজন। পরিমিত এবং সুষম উপায়ে খাবার গ্রহণ করলে মজাদার খাবার খেয়েও সুস্থ থাকা এবং ইদের আনন্দ উপভোগ করা সম্ভব। তার জন্য সঠিকভাবে মেনে চলতে হবে কিছু বিষয়।

সকালের স্বাস্থ্যকর খাবার - ইদে সকাল থেকেই উৎসবমুখর আমেজ শুরু হয়ে যায়। ইদে সব খাবারের স্বাদ নিতে চাইলে খাবারের বন্টন সুষম হতে হবে। সাধারণত দিনে-রাতে মিলিয়ে আমরা সারাদিনের খাবারকে ছয় ভাগে ভাগ করে খেতে বলি। সুতরাং আপনি সব খাবারই খেতে পারবেন সঠিক ভাগে ভাগ করে। কোরবানির ইদে সাধারণত পশু জবাই এবং বন্টনের পর অর্থাৎ দুপুর থেকে মাংসের প্রস্তুতি শুরু হয়। সে হিসেবে সকালের খাবারটা একটু হালকা খাবার দিয়ে শুরু করুন৷ আটার রুটির সাথে সবজি খেতে পারেন। অন্যান্য সময় থেকে একটু ভিন্ন ভাবে সবজি করতে পারেন যেমন পাঁচমিশালি সবজি অতবা সবজির ঘন্ট বা সবজির লাবড়া। আবার সবজি দিয়ে তৈরি করে নিতে পারেন সবজি খিচুড়ি। এতে করে ভিটামিন-মিনারেলস পেয়ে যাবেন সহজেই। যে খাবারই খান না কেন অবশ্যই সঠিক পরিমাণে খাবেন।

ইদের দুপুরে মজাদার খাবার - সারাদিনের ছয় বেলার খাবারের মধ্যে দুপুরের খাবারটি অন্য বেলার থেকে অধিক ক্যালরি সমৃদ্ধ হয়। অর্থাৎ উৎসবের আমেজে ক্যালরি রিচ বিশেষ খাবার গুলি আপনি দুপুরে খেতে পারবেন পরিমিত পরিমাণে। মাংস বা রেড মিটের আইটমে স্বাস্থ্যকর ভাবে প্রস্তুত করলে অনেকটা স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব এবং একি সাথে মাংসের আইটেম উপভোগ করাও সম্ভব। যেমন গরু বা খাসির মাংসের কাবাব করতে পারেন অথবা মাংসের সাথে সবজি যেমন পেঁপে, লাউ, গাজর, বাঁধাকপি, ক্যাপসিকাম ব্যবহার করে মজাদার মাংসের পদ তৈরি করে নিতে পারেন। কল তেল-মশলায় তৈরি করে নিতে পারেন মাংসের আইটেম গুলি। এছাড়া এ সময় মাংসের আইটেমের পাশাপাশি থাকে অন্যান্য হরেক রকম খাবার। বিশেষ খাবারকে স্বাস্থ্যকর করতে আপনি তৈরি করতে পারেন সবজি পোলাউ। চিকেন রোস্ট বা কোরমার বদলে করুন চিকেন গ্রিল বা চিকেন কাটলেট। ক্যালরি ভ্যালু কম থাকে বলে এগুলি অধিক স্বাস্থ্যসম্মত খাবার। অবশ্যই ফাইবার পেতে সালাদের আইটেম রাখবেন এবং লাঞ্চের পরে হাফ কাপ টকদই গ্রহণ করবেন যেটি হজম প্রক্রিয়া সহজতর করবে।

রাতে চাই হালকা খাবার - সারাদিনে নানা পদের বিশেষ খাবার দিনের ক্যালরি চাহিদার অনেকটাই পূরণ হয় যায়। তাই রাতে বেছে নিতে হবে অধিকতর হালকা খাবার। ইদের সময়ে ক্যালরি রিচ খাবার খাওয়া হয় বলে ক্যালরি ভ্যালু ব্যালান্স করতে শর্করা জাতীয় খাবার ব্যালান্স করা প্রয়োজন। এ সময় প্রয়োজন অনুযায়ী কার্ব বা শর্করার পরিমাণ কমাতে হলে সেটি রাতের খাবারে কমানো প্রয়োজন অর্থাৎ রাতে দিনের ভাগের থেকে কম কার্ব গ্রহণ করবেন সাথে মাছের একটি আইটেম রাখলে স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভালো। হতে পারে ফিস গ্রিল,বেকড ফিস বা ফিস কাটলেট। সাথে সবজি দিয়ে তৈরি সবজি চপ বা সবজির কাটলেট। রাতে মাছ এবং সবজি খাওয়াই স্বাস্থ্যকর। মাংসের আইটেম যদি খেতেই হয় তবে ঝোল-মশলা বাদে চর্বি ছাড়া মাংস খাবেন অথবা খেতে হবে মুরগির কোন স্বাস্থ্যকর আইটেম।

এছাড়া খাদ্যাভ্যাসের পাশাপাশি কিছু সাধারণ বিষয় মেনে চলা জরুরি যেমন রাতের খাবার আটটার মধ্যে খেয়ে ফেলা, প্রতিটি মিলের মধ্যে ২-৩ ঘন্টা বিরতি দেয়া, খাবার পরে একটু হাঁটাহাঁটি করা, পর্যাপ্ত পানি খাওয়া এবং পর্যাপ্ত ঘুম। এই অভ্যাসগুলি আপনাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে।

লেখক

পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু
নিউট্রিশনিস্ট, বায়োজিন কসমেসিউটিক্যালস (উত্তরা ব্রাঞ্চ)
এক্স-ডায়েটিশিয়ান, ভাইবস হেল্থ কেয়ার বাংলাদেশ এবং বেক্সিমকো ফার্মা ডায়েট কেয়ার ডিভিশন
www.facebook.com/NutritionistMonia

রাত পোহালেই ঈদ। ঈদের দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় করে ধর্মপ্রাণ মুসলিমগন ব্যস্ত হয়ে পড়বেন কোরবানির পশু আল্লাহর নামে কোরবানি করতে। ঈদ-উল আজহার অন্যতম আকর্ষন হচ্ছে পশু কোরবানি । যার যার সাধ্যমত সবাই পশু কোরবানি করে থাকেন। বাড়িতে চলে বাহারি রান্নার ধুম। বাহারী নামের অনেক পদের রান্না হয়ে থাকে বাসায়।

আসলে ঈদেরদিন মাত্র একদিন হলেও এর রেশ থেকে যায় পরবর্তি কয়েকদিন । এই দিনগুলোতে আমরা মনের অজান্তেই কিছুটা বেশি খেয়ে ফেলি। যেটা মোটেও স্বাস্থ্যসম্মত নয়। আমাদের প্রত্যেকের শরীরে একটা নির্দিষ্ট চাহিদা আছে। আপনি চাহিদার অতিরিক্ত খেলে শরীরে কিছু ইমব্যালান্স তৈরী হতে পারে।

ঈদের দিনগুলোতে মুলত আমাদের মাংসটাই বেশি খাওয়া হয়ে থাকে। কিন্তু এমনটা কখনোই নয় যে, ঈদের দিনগুলোতে আমাদের শরীরে মাংসের চাহিদা বেশি থাকে। বরং সেটা অন্যান্য দিনেরমতই থাকে। তাই আপনি অন্যান্য দিনেরমতই পরিমিত পরিমানে মাংস খাবেন। মাংসের সাদা চর্বি বর্জন করুন। এটা মোটেও স্বাস্থ্যকর নয়। আর ঈদ বলে শুধু মাংসই খাবেন এমনটা যেন নাহয়, সাথে অবশ্যই কিছু শাকসবজিও রাখুন। এতে খাবারটা ব্যালান্স হবে। খাবার যদি সুষম খাবার নাহয়, সেটা শুধু আপনার পেট ভরাবে মাত্র, আপনার শরীরের চাহিদা পুরন করবে না।

এসময় বাচ্চাদের দিকে একটু বাড়তি খেয়াল রাখতে হবে। কারন দেখা যায় যে, বেশিরভাগ বাচ্চারাই শাকসবজি পছন্দ করে না। আর ঈদের দিনগুলোতে তারা একেবারেই শাকসবজি খেতে চায় না। তাই একটু ধৈর্য ধরে হলেও আপনার বাচ্চাকে একটু শাকসবজি খাওয়ান। আপনার বাড়িতে হয়ত কোন কিডিনীর রোগী আছে বা হৃদ রোগের রোগী আছে অথবা ডায়াবেটিস ব্যাক্তি আছে অথবা অন্যকোন রোগযুক্ত ব্যাক্তি থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে তাদের দিকেও বাড়তি মনোযোগ দিন। তাদের জন্যও ঈদেরদিন তাদের খাদ্য তালিকা মেনেই রান্না করুন। যেন তিনি একদিন ইচ্ছামত খাবার খেয়ে দশদিন হাসপাতালে না থাকেন। তাই তাদের জন্যও বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করুন।

একদিনে কতটুকু মাংস খাওয়া যাবে?

এমন প্রশ্ন অনেকেই করে থাকেন। তবে এই প্রশ্নের উত্তরটা খুব জটিল। কারন প্রতিটা মানুষের শরীরে আলাদা আলাদা খাবার চাহিদা থাকে। একটু ভেবে দেখুন, আপনি একদিনে যতটুকু মাংস খাবেন, আপনার পাচ বছরের বাচ্চা কি ততটুকু মাংস খাবে? না, সেটা কখনই নয়। তবুও আমি আপনাদের একটু ধারনা দেওয়ার চেষ্টা করি। ধরে নিচ্ছি যে, আপনি স্বাভাবিক ওজন উচ্চতার একজন পুর্নবয়স্ক মানুষ। ধরে নিচ্ছি আপনার স্বাভাবিক ওজন ৭৫ কেজি। তাহলে সেক্ষত্রে আপনি সারাদিনে মাংসের কোয়ালিটি ভেদে ৩০০ থেকে সর্বোচ্চ ৪০০ গ্রাম মাংস খেতে পারেন। তবে সেটা একবারেই খেয়ে নিবেন, এমনটা কিন্তু নয়। এটা সারাদিনে তিনবারে ভাগ করে খাবেন। সাথে প্রতিবেলায় অবশ্যই কিছু শাকসবজিও যেন থাকে। বাসায় মাংস বেশি আছে তাই বেশি খাবেন এমনটা যেন নাহয়। মনে করুন আপনার একটা গাড়ি আছে, যেটার টাংকিতে ২০ লিটার তেল ধরে। কোন একদিন তেল পাম্পওয়ালা আপনাকে বল্ল যে আপনার জন্য তেল ফ্রি। আপনি তেল ফ্রি পেয়েও কি আপনার গাড়িতে ২০ লিটারের বেশি তেল নিতে পারবেন? না, পারবেন না। কারন আপনার গাড়ির চাহিদায় হচ্ছে ২০ লিটার, তাই আপনি চাইলেও ২১ লিটার তেল নিতে পারবেন না। আপনাকে ২০ লিটার তেলই নিতে হবে। একইভাবে আপনি মাংস বেশি আছে বলেই যে বেশি খাবেন এটা যেন নাহয়। আপনিও আপনার শরীরের চাহিদা বুঝে খাবেন। শরীরের চাহিদা বুঝে খান, সুস্থ থাকুন ভাল থাকুন।

লেখক

পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন
চেম্বারঃ
সার্জিস্কোপ হাসপাতাল, ইউনিট-২, কাতালগঞ্জ, চট্টগ্রাম। প্রতি শুক্রবার থেকে বুধবার, সন্ধ্যা ৭ঃ০০ টা থেকে রাত ১০ঃ০০ টা পর্যন্ত।
সিরিয়ালের জন্যঃ ০১৭৬৪-৭৮৬৭৫৩
অনলাইন সেবা পাওয়ার জন‌্য
হোয়াটস এ‌্যাপ নম্বর-01533843123
www.facebook.com/Nutritionist.Iqbal

ফলের মধ্যে জাম খুবই সুস্বাদু একটি ফল, সেইসাথে এটি পুষ্টিগুনেও ভরপুর। স্বাস্থ্য উপকারিতার দিক থেকে অনকেই হয়তো জানেন না, জাম ত্বকের প্রদাহজনিত রোগের ক্ষেত্রেও বেশ উপাকারি। তৈলাক্ত ত্বক যাদের বা ব্রনের সমস্যায় যারা ভুগছেন তারা এই মৌসুমে প্রতিদিন জাম খেতে পারেন। গবেষণা বলে জামে থাকা অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিফাংগাল প্রপারটি ব্যাকটেরিয়া এবং ফাংগাসের বিরুদ্ধে কাজ করে। তাই ত্বকের বিভিন্ন সমস্যায় এটি কার্যকর। তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারী ব্যক্তি জাম খেলে উপকার পাবেন, দৈনিক পরিমাণ ১০০ গ্রাম।

অতিরিক্ত ভাজাপোড়া খাবার কিংবা ফাস্টফুড তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ভিষণ মারাত্মক। কারণ এসব খাবার অয়েল সিক্রেশন বাড়ায়। তাই ত্বক ভালো রাখতে বেছে নিতে হবে স্বাস্থ্যকর খাবার। জামের জুসের বদলে গোটা জাম কিংবা জাম একটু মাখিয়ে খাওয়া বেশি স্বাস্থ্যকর।

লেখক

পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু
নিউট্রিশনিস্ট, বায়োজিন কসমেসিউটিক্যালস (উত্তরা ব্রাঞ্চ)
এক্স-ডায়েটিশিয়ান, ভাইবস হেল্থ কেয়ার বাংলাদেশ এবং বেক্সিমকো ফার্মা ডায়েট কেয়ার ডিভিশন
www.facebook.com/NutritionistMonia

  1. royalbangla.com এ আপনার লেখা বা মতামত বা পরামর্শ পাঠাতে পারেন এই এ‌্যড্রেসে [email protected]
পরবর্তী পোস্ট

একজন সিনিয়র প্রফেসর ডাক্তারের চেম্বারটি হতে পারে একটি ছোটখাট ইন্সিটিটিউশন


ব্রণ সমস‌্যার ঘরোয়া সমাধান- সহজ এবং শতভাগ কার্যকরী

রয়াল বাংলা ডেস্ক
মোবাইল ফোনের রেডিয়েশন আপনার কিভাবে ক্ষতি করছে? জেনে নিন।

রয়াল বাংলা ডেস্ক
পাইলস কি, কেন এবং কিভাবে হয়?

Colorectal Care Dr. Md Ashek Mahmud Ferdaus
কোষ্ঠকাঠিন্য কি, এর জটিলতা ও সমাধান

Colorectal Care Dr. Md Ashek Mahmud Ferdaus
ফুড সাপ্লিমেন্ট কি ? কেন নেবেন?

পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী
ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা ও নিয়ম

Colorectal Care Dr. Md Ashek Mahmud Ferdaus
পুরুষের বন্ধ্যাত্বের সমস্যা কেন বাড়ছে ?

ডাঃ আয়েশা রাইসুল
খারাপ কোলেস্টেরল কি ? কিভাবে কমানো যায় ?

পুষ্টিবিদ সিরাজাম মুনিরা
ভাতের আসক্তি কমানোর উপায় কি?

ডায়েটিশিয়ান ফারজানা
প্রি-ডায়াবেটিস বা ডায়াবেটিস এর ঝুকি

Nutritionist Iqbal Hossain
ফর্সা হতে চান?

পুষ্টিবিদ সিরাজাম মুনিরা
ভাত কতটা ওজন বাড়ায়?

পুষ্টিবিদ তাহমিনা আক্তার
গ্রিন টি বা সবুজ চা কেন খাবেন ?

Nusrat Jahan
এলার্জি কিভাবে কমাবেন?

Dietitian Shirajam Munira
গ্যাসের সমস্যা ওষুধ খেয়ে না কমিয়ে প্রাকৃতিক উপায়ে কমান

ডায়েট কনসালটেন্ট নুসরাত জাহান
ধাতু রোগ কি? কেন কিভাবে হয়? কী করণীয়

royalbangla desk
মাইগ্রেন থেকে দূরে থাকবেন কিভাবে?

নুসরাত জাহান, ডায়েট কনসালটেন্ট
চুল কি একটু বেশি পড়ছে? পর্ব-১

পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী
কিটো ডায়েটের নেগেটিভ দিক!

ডাঃ আয়েশা রাইসুল (গভঃ রেজিঃ H-১৫৯৮)
স্তনের চাকা এবং ক্যান্সার আতংক

ডাঃ লায়লা শিরিন,সহযোগী অধ্যাপক, ক্যান্সার সার্জারী, জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল

রক্তশূণ্যতা কী? কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার।

ডাঃ গুলজার হোসেন
রক্তের প্রধান দুটি উপাদান হলো রক্তকোষ ও রক্তরস। লোহিত রক্তকণিকায় থাকে হিমোগ্লোবিন নামের রঞ্জক পদার্থ, যা দেহের বিভিন্ন কোষে অক্সিজেন সরবরাহ করে।তাই হিমোগ্লোবিন কমে গেলে সারা শরীরে দেখা দেয় বিরূপ প্রতিক্রিয়া। আর রক্তে হিমোগ্লোবিন কমে যাওয়ার নাম হলো অ্যানিমিয়া বা রক্তশূন্যতা।......
বিস্তারিত

মাইগ্রেন থেকে দূরে থাকবেন কিভাবে?

নুসরাত জাহান, ডায়েট কনসালটেন্ট
মাইগ্রেন এক বিশেষ ধরনের মাথাব্যথা। মাথার যে কোনও এক পাশ থেকে শুরু হয়ে তা মারাত্মক কষ্টকর হয়ে ওঠে। তাই একে ‘আধ-কপালি ’ ব্যথাও বলা হয়ে থাকে। মাইগ্রেনের যন্ত্রণা অত্যন্ত কষ্টদায়ক এবং দীর্ঘস্থায়ী। যাঁদের মাইগ্রেনের সমস্যা রয়েছে, তীব্র মাথা যন্ত্রণার পাশাপাশি তাঁদের বমি বমি ভাব, শরীরে এবং মুখে অস্বস্তিভাব দেখা দিতে পারে। .........
বিস্তারিত

ফিটাল গ্রোথ স্ক্যান (Fetal Growth Scan) কি, কখন এবং কেন করা প্রয়োজন।

ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা),Consultant Sonologist
ফিটাল গ্রোথ স্ক্যান হ'ল এক প্রকার আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান যা গর্ভধারণের ২৪ সপ্তাহের পর হতে প্রসবের পূর্ব পর্যন্ত যে কোন সময় শিশুর বৃদ্ধি ও সুস্থতা নির্ধারণ করতে করা হয়ে থাকে। এটি এক বা একাধিক বার করা যেতে পারে (প্রয়োজন অনুসারে)।...........
বিস্তারিত

আপনি জানেন কি? শারীরিক পরিশ্রমে, ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে?

ডা. মোহাম্মদ মাসুমুল হক,আবাসিক চিকিৎসক, ক্যান্সার সোসাইটি হাসপাতাল এন্ড ওয়েলফেয়ার হোম
প্রতিদিন গড়ে অন্তত ৩০-৬০ মিনিট করে, সপ্তাহে ০৫ দিন (মোট ১৫০-৩০০ মিনিট) এমন কিছু কায়িক পরিশ্রম, যাতে হৃদ স্পন্দন বৃদ্ধি পায় ও ঘাম হয়। .........
বিস্তারিত

কেন 'টেস্ট' দেন চিকিৎসক?

Dr.Afjal Hossain
চিকিৎসা নিতে গেলে প্রায়ই চিকিৎসকেরা আমাদের নানা শারীরিক পরীক্ষা (টেস্ট) করতে দেন। আমরা বুঝি না কেন এসব পরীক্ষা করা হচ্ছে? রোগের চিকিৎসায় এটি কতটা কাজে লাগবে?........
বিস্তারিত

একজন অন্তর্মুখী মানুষকে চিনবো কিভাবে?

ডা. মুহম্মদ মুহিদুল ইসলাম,সায়েন্টিফিক অফিসার
এঁদের পছন্দকারী মানুষের সংখ্যা অনেক সময় তুলনামূলকভাবে কম হয়। অন্তর্মুখী স্বভাবের জন্য অনেকেই অহংকারী ভেবে বসতে পারে।.......
বিস্তারিত

ফিটাল পাইলেক্টেসিস এবং হাইড্রোনেফ্রোসিস (Fetal Pyelectasis & hydronephrosis)

ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা),Consultant Sonologist
বুঝার জন্য, প্রথমে মূত্রতন্ত্র কিভাবে কাজ করে তা বুঝা দরকার। সহজ কথায় বলা যায়, কিডনি রক্ত ফিল্টার করে শরীর থেকে বর্জ্য পদার্থ অপসারণ করে যা প্রস্রাবের মাধ্যমে শরীর থেকে বের হয়ে যায়। কিডনি থেকে প্রস্রাব কিডনির পেলভিসে জমা হয়,.......
বিস্তারিত

ক্যান্সার চিকিৎসার সময় কি কি লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন??

DR. MOHAMMAD MASUMUL HAQUE,Cancer Prevention Physician
ক্যান্সার চিকিৎসা একটি দীর্ঘ মেয়াদি চিকিৎসা। এবং এই চিকিৎসার যেহেতু কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে তাই এই চিকিৎসা চলাকালীন একজন ব্যক্তির কিছু শারীরিক সমস্যা বা উপসর্গ দেখা দিতে পারে।......
বিস্তারিত

IBS (Irritable Bowel Syndrome) ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম বা বদহজমের সমস্যায় কী করণীয়?

ডা. মুহম্মদ মুহিদুল ইসলাম,সায়েন্টিফিক অফিসার
বৃহদান্ত্রের খুব কমন সমস্যা হচ্ছে IBS । আমাদের পরিচিত অনেকেই হয়ত IBS এ আক্রান্ত।এ রোগটা কিছুটা অস্বস্তিকর। মাঝে মাঝে কিছু খেলেই এমনকি মানসিক চাপে থাকলেও এই রোগের লক্ষন বেড়ে যায়।বারবার বাথরুমে ছোটাছুটি করা লাগে।........
বিস্তারিত

বাচ্চাদের খাবারে কিছু কমন রুলস আমাদের কে মেনে চলতে হবে.........

নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী,Bsc (Hon's) Msc (food & Nutrition)
১. খাবারে বৈচিত্র্য রাখা! ২. বাচ্চাকে ঘরোয়া খাবারে অভ্যস্ত করা.....
বিস্তারিত

ইতিবাচক বিবৃতি

জিয়ানুর কবির,ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিষ্ট
নিজের স্বাস্থ্যকর ইমেজ নির্মাণ করার জন্য, অনেক মনোবিজ্ঞানী ইতিবাচক বিবৃতি ব্যবহার করা সহায়ক বলে মনে করেন। এই বিবৃতিগুলির উদ্দেশ্য হল আপনার মধ্যে থাকা ভাল গুণাবলীর কথা মনে করিয়ে দেওয়া এবং কষ্টকর পরিস্থিতিতে আপনাকে শক্তি, সাহস এবং স্থিতিস্থাপকতা দেবে। .......
বিস্তারিত

অলিগোহাইড্রামনিওস (Oligohydramnios) (এমনায়োটিক তরলের স্বল্পতা)

ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা),Consultant Sonologist
অলিগোহাইড্রামনিওস হল একটি বিশেষ কন্ডিশন যেখানে গর্ভাবস্থায় আপনার বেবির চার দিকে থাকা অ্যামনিয়োটিক তরলের পরিমাণ অনেক কমে যায়, এতে মা ও শিশু উভয়ে বিভিন্ন জটিলতার সম্মুখীন হওয়ায় সম্ভাবনা থাকে।......
বিস্তারিত

মহিলাদের ইনফার্টিলিটি দূর করার ক্ষেত্রে ডিম্বাণুর গুণাগুণ কেন গুরুত্বপূর্ণ?


ডাঃ হাসনা হোসেন আখী,এমবিবিএস, বিসিএস (স্বাস্থ্য),এমএস (অবস এন্ড গাইনী)

ব্রেস্ট ফিডিং মায়েদের ডায়েট কেমন হওয়া উচিত?


নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী,Bsc (Hon's) Msc (food & Nutrition)

লিম্ফোমাঃ রক্তের বিশেষ একপ্রকারের ক্যান্সার


ডাঃ গুলজার হোসেন ,বিশেষজ্ঞ হেমাটোলজিস্ট

ব্যস্ত জীবনে সুস্থ থাকতে ছোট ছোট পরিবর্তন আনুন


পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু

ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে যে পদক্ষেপটি সবার জন্য জরুরি


ডাঃ লায়লা শিরিন

কেন হাঁটবেন? কিভাবে হাঁটবেন ? কতটুকু হাঁটবেন?


ডা: অনির্বাণ মোদক পূজন।হৃদরোগ, বাতজ্বর ও উচ্চ রক্তচাপ রোগ বিশেষজ্ঞ

রুট ক্যানাল ( দাতেঁর ব্যথার) চিকিৎসা কি? কখন করাতে হয়?


ডা: এস.এম.ছাদিক,বি ডি এস (ডি ইউ),এম পি এইচ (অন কোর্স)

প্রেগ্ন্যান্সিতে 3D/4D আল্ট্রাসনোগ্রাম কখন কেন করাবেন।


ডাঃ সরওয়াত আফরিনা আক্তার (রুমা) ,,Consultant Sonologist

সম্পর্কের ক্ষেত্রে যৌনস্বাস্থ্যের গুরুত্বপূর্ণতা


ডা. ফাতেমা জোহরা

সত্যিই কি প্লাস্টিকের ডিম আর চালের অস্তিত্ব আছে?


পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন।

ডেংগি ও প্লেইটলেট(ডেংগু নিয়ে কিছু ভ্রান্ত আতঙ্ক)


ডাঃ গুলজার হোসেন

দাঁতের যত্নে গুরুত্বপূর্ণ ৮ টি টিপস


ডাঃ তারিকুল সরকার (তারেক)

মনের যত্ন


জিয়ানুর কবির

করোনায় ফুসফুস কে ভালো রাখবেন কি করে?


পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী

ত্বকের উজ্জ্বলতায় কিশমিশ


পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু

মূত্রতন্ত্রের পাথর (urinary stone) (উপসর্গ, চিকিৎসা ও প্রতিকার)


ডাঃ মোহাম্মদ ইব্রাহিম আলী

শিশুদের জন্য ব্যায়াম কখন প্রয়োজন?


নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী

অফিসে পৌঁছে ক্ষুধা পেলে কি খাবো ?


পুষ্টিবিদ মুনিয়া মৌরিন মুমু

গর্ভবতী মহিলা কি কোভিড টীকা নিতে পারবেন ?


ডাঃ হাসনা হোসেন আখী,এমবিবিএস, বিসিএস (স্বাস্থ্য),এমএস (অবস এন্ড গাইনী)

সম্পর্কের ক্ষেত্রে যৌনস্বাস্থ্যের গুরুত্বপূর্ণতা


ডা. ফাতেমা জোহরা

সত্যিই কি প্লাস্টিকের ডিম আর চালের অস্তিত্ব আছে?


পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন।

ডেংগি ও প্লেইটলেট(ডেংগু নিয়ে কিছু ভ্রান্ত আতঙ্ক)


ডাঃ গুলজার হোসেন

দাঁতের যত্নে গুরুত্বপূর্ণ ৮ টি টিপস


ডাঃ তারিকুল সরকার (তারেক)

মনের যত্ন


জিয়ানুর কবির