Royalbangla
নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী
নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী

থাইরয়েড কি?

পুষ্টি

বর্তমানে পৃথিবীতে থাইরয়েড সমস্যায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেক। আমরা অনেকে এই রোগের নাম শুনলেও বা আশেপাশে আক্রান্ত রোগী দেখলে কিংবা নিজে আক্রান্ত হলেও আমরা এই রোগ সম্পর্কে অনেকেই খুব একটা জানিনা। চলুন তাহলে এই সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নেয়া যাকঃ

থাইরয়েড হল আমাদের একটি গ্রন্থি যা আমাদের গলার সামনের দিকে অবস্থিত। এই গ্রন্থি থেকে কিছু প্রয়োজনীয় হরমোন নিঃসৃত হয়। এই হরমোন আমাদের বিপাক সহ আরো বিভিন্ন কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই হরমোন তৈরির জন্য এই গ্রন্থিটির প্রয়োজনীয় পরমাণে আয়োডিনের দরকার হয়। উক্ত হরমোন আমাদের বিপাক ক্রিয়া সহ বিভিন্ন শারীরিক এবং মানসিক বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

থাইরয়েড গ্রন্থি সাধারণত দুই ধরণের হরমোন নিঃসরণ করে।

এক.ট্রাই-আয়োডোথাইরোনিন(T3)
দুই.থাইরক্সিন(T4)

বাচ্চাদের ক্ষেত্রে জন্মের সময় এই গ্রন্থি ঠিকভাবে তৈরি না হলে কিংবা প্রয়োজনমত হরমোন তৈরি করতে না পারলে বাচ্চাদের শারীরিক এবং মানসিক বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।

আমাদের শরীরে যতটুকু হরমোন প্রয়োজন তার চেয়ে কম কিংবা বেশি পরিমাণে এই হরমোন তৈরি হলে তখন নানা রকম সমস্যা দেখা দেয়। প্রয়োজনের তুলনায় কম পরিমাণে এই হরমোন তৈরি হলে হাইপোথাইরয়ডিজম হতে পারে। আবার প্রয়োজনের তুলনায় বেশি পরিমাণে এই হরমোন উৎপন্ন হলে হাইপারথাইরয়ডিজম হতে পারে। উভয়ই আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

এছাড়াও উক্ত গ্রন্থিতে আরো বিভিন্ন রকমের রোগ হতে পারে। সাধারণত বেশি হয় এমন কিছু রোগ নিয়ে আলোচনা করা যাকঃ

ক.হাইপোথাইরয়ডিজম(Hypothyroidism)
খ.হাইপারথাইরয়ডিজম(Hyperthyroidism)
গ.গয়েটার(Goiter)
ঘ.নডিউল(Nodule)
ঙ.থাইরয়েড ক্যান্সার(Thyroid Cancer)
চ.গ্রেভস ডিজিজ(Graves' disease)

 থাইরয়েড সমস্যা

হাইপোথাইরয়ডিজম(Hypothyroidism ) ঃ

থাইরয়েড গ্রন্থি যদি প্রয়োজনের তুলনায় কম হরমোন উৎপাদন করে তখন হাইপোথাইরয়ডিজম হবার সম্ভাবনা আছে। যদিও অনেক সময় এর চোখে পড়ার মত লক্ষণ দেখা যায়না, যার ফলে অনেকে বুঝতেই পারেন না তারা হাইপোথাইরয়ডিজম এ আক্রান্ত।

তবে হাইপোথাইরয়ডিজম হলে সাধারণত যে লক্ষণগুলো দেখা যায় তা হলঃ

-ক্লান্তি কিংবা অবসাদ অনুভব করা
-কোনো কিছুতে মনোযোগ দিতে না পারা।
-শুষ্ক ত্বক
-কোষ্ঠকাঠিন্য
-অল্পতেই শীত শীত লাগবে
-পেশী এবং বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যাথা অনুভূত হবে।
-বিষণ্ণতা থাকবে
-মহিলাদের ক্ষেত্রে ঋতুস্রাবের সময় অতিরিক্ত পরিমাণ রক্তক্ষরণ হতে পারে। পালস রেট কম থাকতে পারে স্বাভাবিক এর তুলনায়।

হাইপারথাইরয়ডিজম(Hyperthyroidism )

এক্ষেত্রে হাইপারথাইরয়ডিজম এর উল্টো ঘটনা ঘটে। থাইরয়েড গ্রন্থি প্রয়োজনের তুলনায় বেশি হরমোন উৎপাদন করলে হাইপারথাইরয়ডিজম হবার সম্ভাবনা থাকে।

থাইরয়েড গ্রন্থিকে নিয়ন্ত্রণ করে মস্তিষ্কের পিটুইটারি গ্রন্থি নামক এক গ্রন্থি। মস্তিষ্কের এই পিটুইটারি গ্রন্থি কে আবার নিয়ন্ত্রণ করে মস্তিষ্কের হাইপোথ্যালামাস নামক অংশ। এই হাইপোথ্যালামাস থাইরয়েড রিলিজিং হরমোন(TRH) নামক এক হরমোন নির্গত করে। এই TRH হরমোন এর কাজ হল পিটুইটারি গ্রন্থি কে থাইরয়েড স্টিমুলেটিং হরমোন(TSH) নামক এক হরমোন নির্গত করার জন্য সংকেত পাঠানো। এই TSH হরমোন উক্ত গ্রন্থি কে থাইরয়েড হরমোন নির্গত করার জন্য সংকেত পাঠায়। বোঝা গেল তাহলে এই হরমোন উৎপাদন এর জন্য শুধুমাত্র থাইরয়েড গ্রন্থি দায়ী নয়। হাইপোথ্যালামাস, পিটুইটারি গ্রন্থি এবং থাইরয়েড গ্রন্থির মিলিত প্রচেষ্টায় হরমোন নির্গমণ কাজ সম্পন্ন হয়।

এখন উক্ত ৩ টি গ্রন্থির যে কোনো একটি বা একাধিক গ্রন্থি যদি প্রয়োজনের তুলনায় বেশি কাজ করে ফেলে তখন ফলাফল হিসেবে যতটুকু হরমোন দরকার তার চেয়ে বেশি পরিমাণ হরমোন উৎপন্ন হয়। আর তখনই বাঁধে সমস্যা। যেটা হাইপারথাইরয়ডিজম নামে পরিচিত।

হাইপারথাইরয়ডিজম হলে সাধারণত যে লক্ষণগুলো দেখা যায়ঃ

এক.অতিরিক্ত ঘাম
দুই.গরম সহ্য না করতে পারা
তিন.হজমে সমস্যা
চার.দুশ্চিন্তা, উদ্বেগ বেড়ে যাওয়া।
পাঁচ.অস্থিরতা অনুভব করা।
ছয়.ওজন কমে যাওয়া
সাত.পালস রেট বেড়ে যাওয়া
আট.ঠিকমত ঘুম না হওয়া
নয়.চুল পাতলা এবং ভঙ্গুর হয়ে যাওয়া
দশ.ত্বক পাতলা হয়ে যাওয়া

মহিলাদের ক্ষেত্রে ঋতুস্রাব অনিয়মত কিংবা খুব অল্প পরিমাণে হওয়া।বয়স্ক রোগীদের ক্ষেত্রে হৃদস্পন্দন বেড়ে যেতে পারে। খুব খারাপ অবস্থা হলে এবং হাইপারথাইরয়ডিজম এর প্রয়োজনীয় চিকিৎসা না নেয়া হলে থাইরয়েড স্টর্ম(thyroid storm) হতে পারে। এতে রোগীর রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে, জ্বর আসতে পারে এবং হৃদস্পন্দন বন্ধ ও হয়ে যেতে পারে।

গয়েটার(Goitar)

এছাড়াও থাইরয়েড গ্রন্থিটিই বড় হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে একে গয়েটার(Goiter) বা গলগন্ড বলা হয়ে থাকে। যেহেতু গ্রন্থিটি হরমোন তৈরির জন্য আয়োডিন এর প্রয়োজন পড়ে। সেহেতু আয়োডিনের অভাব হলে গ্রন্থিটি হরমোন তৈরি করতে পারেনা ঠিকভাবে। তবুও এটি চেষ্টা করে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় হরমোন তৈরি করতে। ফলস্বরূপ এটি নিজে বড় হয়ে যায় শরীরের হরমোনের মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে। এবং একটা সময় এটি আর পারেনা সেই স্বাভাবিক মাত্রায় হরমোন তৈরি করতে। ফলে হরমোন এর পরিমাণ কমে যায় প্রয়োজনের তুলনায়। এবং ফলাফল হিসেবে উক্ত ব্যক্তি হাইপোথাইরয়ডিজম এ আক্রান্ত হয়। এজন্য যেসব শিশু বা মানুষ আয়োডিন এর স্বল্পতায় ভুগে তাদের এই রোগ হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তবে বর্তমানে লবণের সাথে আয়োডিন গ্রহণের ফলে এই রোগের প্রাদুর্ভাব অনেকাংশেই কমে এসেছে।

নডিউল(Nodule)

এছাড়া এই গ্রন্থিতে টিউমার ও হতে পারে। যাকে নডিউল(Nodule) বলে। এক্ষেত্রে এই টিউমার সংখ্যায় এক বা একাধিক হতে পারে। এবং বিভিন্ন আকারের হতে পারে। তবে টিউমার হলেই সবক্ষেত্রে ক্যান্সার হয়না। তবে অবস্থা বেশি খারাপ হলে এবং কোনো চিকিৎসা না নেয়া হলে এটি ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। যাকে বলা হয় থাইরয়েড ক্যান্সার।

রোগ সনাক্তকরণঃ

থাইরয়েড এর বিভিন্ন রোগ সনাক্তকরণে সাধারণত নিচের পরীক্ষাগুলো করা হয়ঃ

রক্ত পরীক্ষাঃ

রক্তের বিভিন্ন পরীক্ষার মাধ্যমে হরমোনের মাত্রা পরীক্ষা করা যায়। রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে সাধারণত নিচের টেস্টগুলো কতা হয়ঃ

Thyroid stimulating hormone(TSH):

এই পরীক্ষায় রক্তে TSH এর মাত্রা জানা যায়!

লেখক
নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী
Bsc (Hon's) Msc (food & Nutrition)
CND (BIRDEM), CCND (BADN)
Trained on Special Child Nutrition
Consultant Dientitiant (Ex)
Samorita Hospital
Mobile: 01750-765578,017678-377442
লেখকের সাথে যোগাযোগ করতে নিচের ফেসবুক পেইজে ক্লিক করুন
www.facebook.com/নিউট্রিশনিস্ট-সুমাইয়া-সিরাজী-102934114426153/

  1. royalbangla.com এ আপনার লেখা বা মতামত বা পরামর্শ পাঠাতে পারেন এই এ‌্যড্রেসে royal_bangla@yahoo.com
পরবর্তী পোস্ট

মানসিক সেবাপ্রদানকারী কি সঠিক ডিগ্রীধারী??


ওটস কেন খাবেন? এর উপকারিতাই বা কি ?

নিউট্রিশনিস্ট সুমাইয়া সিরাজী
এসিডিটি ও ওটস
সবাই তাদের পছন্দ মতো ওটসের দেশী অথবা বিদেশী ডিশ তৈরী করে থাকেন যা তাঁদের স্বাদের যোগানের সাথে সাথে স্বাস্থ্যেও পুষ্টি বজায় রাখে। আজকাল বাজারে অনেক ধরণের ওটস পাওয়া যায় তার মধ্যে প্যাকেট ওটস, রেডি টু ইট ওটস, ওটসের আটা ইত্যাদির চাহিদা সবচেয়ে বেশি।..
বিস্তারিত

ডিপ্রেশনের সাইকোলজিক্যাল কারণ

জিয়ানুর কবির
depression in Bangla
ডিপ্রেশনের কগনিটিভ থিউরি অনুযায়ী, ডিপ্রেশনের জন্য দায়ী কগনিটিভ ডিসটরশন বা চিন্তার বিচ্যুতি। আমরেকিান সাইকিয়াটিষ্ট Aron T Beck কগনিটিভ ডিসটরশন নিয়ে প্রথম কাজ করেন। কগনিটিভ ডিসটরশনের কারনে ব্যাক্তি ব্যাস্তবতাকে ভূলভাবে বুঝতে পারেন।...
বিস্তারিত

হাত ও পায়ের ত্বকের উজ্বলতা বৃদ্ধি

Royal Bangla Desk
হাত ও পায়ের কালো দাগ
আমাদের শরীর পোষাকে ঢাকা থাকলেও হাত ও পা সবসময় উন্মুক্ত থাকে। সূর্যয়ের তাপ ও এর অতিবেগুনী রশ্ম ইত্যাদি আরো অনেক কিছুর সংস্পর্শে এসে তা হাত ও পায়ের ত্বক বেশি মুষড়ে পড়ে। এ স্থান গুলোর স্বাভাবিক সৌন্দর্য ধরে রাখতে তাই প্রয়োজন বাড়তি যত্ন।
বিস্তারিত

মুখের ত্বকে ও শরীরের ত্বকের লোমকূপে জমে থাকা ময়লা কিভাবে দূর করবেন?

Royal Bangla Desk
ত্বকে জমে থাকা ময়লা
তৈলাক্ততা, শুষ্ক ও মৃত কোষের স্তরে অথবা ধুলা ময়লার স্তরে ঢেকে যেতে পারে ত্বক ও এর লোমকূপ গুলো। এ কারণে ছিদ্র গুলো ঢেকে থাকায় রক্তের অতিরিক্ত শ্বেতকণিকার প্রবাহের কারণে চামড়ায় জ্বালাপোড়া হতে পারে। ব্রণ, ফুস্কুড়ি বা নান ধরনের চর্ম রোগ থেকে রক্ষা পেতে এ লোমকূপ বন্ধ হওয়া বা ত্বকে ময়লা জমা রোধ করতে হবে।
বিস্তারিত
Usefulness of Avakado

আভোকাডো এর ১০ টি উপকারিতা ?


Nutritionist Jayoti
food-to-avoid-in-pregnancy

প্রেগন্যন্সিতে বর্জনীয় খাবার অর্থাৎ যে খাবার গুলো গর্ভস্থ শিশুর জন্য বর্জন করতে হবে


নিউট্রিশনিস্ট সাদিয়া স্মৃতি
কুমড়া

মিষ্টি কুমড়ার পুষ্টিগুণ


Nutritionist Iqbal Hossain
বন্ধ‌্যাত্ব

হরমোন ও বন্ধ্যাত্ব!


ডা. মো মাজহারুল হক তানিম
তেল

কোন তেল খাবেন?


Nutritionist Jayoti
দুধ

নবজাতক ও মায়েদের সুস্থতার জন‌্য বুকের দুধ খাওয়ানোর গুরুত্ব


পুষ্টিবিদ সিরাজাম মুনিরা

কেন যাবেন একজন পুষ্টিবিদের কাছে?
1
চা-কফি পানের ক্ষতিকর দিকগুলো কি?
2
ডায়েটে কি দাওয়াত খাওয়া যাবে?
3