Royalbangla
পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন।
পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন।

মুরগীর কলিজা কি সত্যিই বিষাক্ত?

সুখাদ্য

কিছুদিন ধরে পুরোনো একটা বিষয় আবার নতুন করে সামনে আসছে দেখছি, আর সেটা হচ্ছে মুরগীর কলিজা।

কলিজা অনেকেরই খুবই পছন্দের খাবার। ব্যাক্তিগতভাবে আমিও খুব পছন্দ করি। তবে এখন আমার ছেলে ভাগিদার হিসাবে আছে, তাই নিজের ভাগটা ছেড়ে দিতে হয়। খাসি, গরু মুরগীর কলিজা স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী। তবে মুরগির কলিজা নিয়ে রয়েছে ভিন্ন মত।

অনেকেই মনে করেন মুরগির কলিজা খাওয়া ক্ষতিকর। অনেকে এটাকে বিষের সাথেও তুলনা করেন। তবে ধারণাটি এখন আর সঠিক নয়।

বেশ কয়েক বছর আগে থেকেই একটা বিষয় সবাই জেনে আসছেন যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক পরীক্ষা করে(গবেষনা নয় কিন্তু, পরীক্ষা আর গবেষণা ভিন্ন জিনিস) দেখেছেন যে, ফার্মের মুরগীর কলিজা ভীষন ক্ষতিকর। অনেকে বাচ্চাদের জন্য সেটাকে বিষেরমত মনে করেন।

ঢাবির স্যার বলেছেন যে, কলিজায় মাত্রারিক্ত ক্রোময়াম থাকে সাথে অন্যান্য কিছু হেভি মেটালও থাকে। তবে স্যারের পরীক্ষার কোন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ছিল না। উনি জাস্ট নিজের কৌতুহল মেটানোর জন্যই এগুলো পরীক্ষা করেছিলেন। উনার কৌতুহলের একটা বিশেষ কারন ছিল, আর সেটা হচ্ছে পোল্ট্রি ফিড।

একটা সময় ছিল, যখন বাংলাদেশের বেশকিছু অসাধু ব্যাবসায়ী পোল্ট্রি ফিডের কাচামাল হিসাবে ট্যানারী বর্জ্যের ব্যাবহার করত। যেটা স্বাস্থের জন্য বেশ ঝুকিপুর্ন ছিল। কিন্তু বিষয়টি প্রসাশনের নজরে আসার পর থেকে এই প্রক্রিয়া টা বন্ধ হয়ে গেছে। এখন পোল্ট্রি শিল্পে কোন প্রকারের ট্যানারী বর্জ্যের ব্যাবহার হয় না। এখন প্রতিযোগিতার যুগ, পন্যের মান খারাপ করে কেউ নিজের ব্যাবসার লালবাতি জ্বালাতে চায় না।

এবার আসি স্যারের পরীক্ষার মান সম্পর্কেঃ

স্যার যেসব হেভিমেটালের পরিমান নির্ণয় করতে চেয়েছিলেন, সেগুলো নির্ণয় করতে উনি যেসকল যন্ত্র উপাদান ব্যাবহার করেছিলেন সেগুলো ঐসকল হেভিমেটালের সঠিক % নির্ণয়ের জন্য উপযোগী ছিল না।

কিছুদিন আগে দেশে ঘটে যাওয়া দুইটা ঘটনার বলিঃ-

এক
গতবছর ঢাকার কিছু এলাকায়, ওয়াসা থেকে সাপ্লাইকৃত পানিতে প্রচুর ময়লা যাচ্ছিল সাথে দুর্গন্ধ। যেটা খাওয়ার উপযোগী ছিল না। সাধারন জনগন ওয়াসা ভবন ঘেরাও করল। ওয়াসার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল যে, পানির মান সঠিকভাবে নির্নয়ের যন্ত্রপাতি আমাদের নাই।

দুই
গতবছরের আর একটি ঘটনা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবসহ দেশের বেশ কিছু ল্যাবে দেশের সমস্ত ডেইরী ফার্মের দুধের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। পরীক্ষার পর এবার রেজাল্টের পালা। রেজাল্ট শুনে তো সমস্ত ডেইরী ফার্মের মালিকগনের হার্টফেল হওয়ার অবস্থা। রিপোর্টে বলা হল দেশের প্রায় সকল খামারের দুধে মাত্রারিক্ত সীসাসহ অন্যান্য উপাদান পাওয়া গেছে, যা সকল শ্রেনীর মানুষের জন্য পানের অনুপোযোগী।

কিন্তু পরে দেশের বাইরে ঐ সকল দুধের স্যাম্পল পাঠানো হয়েছিল। এবার প্রতিটা বাইরের ল্যাব থেকে রিপোর্ট আসলো বাংলাদেশের সকল খামারীর দুধ নিরাপদ, আপনারা নিশ্চিন্তে খেতে পারেন।

এই দুইটা ঘটনা দিয়ে আমি এটা বোঝাতে চাইলাম যে, আমাদের দেশে যেখানে পানি আর দুধের সঠিকভাবে মাননিয়ন্ত্রনের ব্যাবস্থা নেই, সেখানে এসব হেভি মেটালের উপস্থিতির বিষয়টা কতটা গ্রহনযোগ্য সেটা আপনারাই সিদ্ধান্ত নিবেন।

অনেকে আবার বাচ্চাকে ফার্মের মুরগীর ডিম খাওয়াতে চান না। কিন্তু কেন তার সঠিক কোন ব্যাখ্যা নাই। সমস্যা একটায় আর সেটা হচ্ছে ফার্মের ডিম তাই। আসলে আপনারা ফার্ম শব্দের মানেই বোঝেন না। একন তো প্রতিটা প্রডাক্ট ফার্মে উৎপন্ন হয়ে থাকে। এখন কৃষি ফার্ম, দুগ্ধ ফার্ম, হাসের ফার্ম, মুরগীর ফার্ম, কবুতরের ফার্ম, ছাগল গরু মহিষ ভেড়া সবকিছুই এখন ফার্মে তৈরী হয়।

তাহলে কি আপনি সবকিছুই বাদ দিচ্ছেন? তা নিশ্চয় না? আবার আপনি যখন বাজারে যাচ্ছেন বা শপিংমলে যাচ্ছেন বা কোন সুপারশপে যাচ্ছেন, তখন কিন্তু বেশিরভাগ পন্যই আপনি বিদেশিটা কিনছেন। শুধু মুরগীর বাজারে গিয়ে দেশি মুরগী কিনছেন। তাহলে কি আপনার দেশপ্রেম শুধু মুরগীতেই সীমাবদ্ধ?

মুরগীর কলিজার স্বাস্থ্য উপকারিতা

বাজারে গিয়ে গরুর মাংস, খাসির মাংস, গরু খাসির কলিজা সব কিনছেন ফার্মের টা। শাকসব্জিও ফার্মের টা।

তারমানে কিন্তু আমি বলছি না যে, দেশি মুরগী আর ফার্মের মুরগীর মধ্যে গুনগত কোন পার্থক্য নেই, অবশ্যই কিছু পার্থক্য আছে। হয়ত কিছু মিনারেলস, প্রোটিন পার্সেন্টেজ, ফ্যাট পার্সেন্টেজ, পানির পার্সেন্টেজসহ কিছু উপাদান কমবেশি থাকতে পারে।

যেমন দেশি মুরগীর ডিমের কুসুমে ভিটামিন ডি এর পরিমান বেশি থাকে যেটা ফার্মের মুরগীর ডিমের কুসুমে অনেক কম থাকে। আবার হয়ত কিছু উপাদান ফার্মের ডিমে বেশি থাকে আর দেশি ডিমে কম থাকে।

আমার ছেলের বয়স দুই বছর। সে প্রতিদিন একটা করে ফার্মের ডিম কুসুমসহ খায়। মাঝেমাঝে আরো একটা সাদা অংশ খায়। গরু খাসি ফার্মের মুরগী সবকিছুর কলিজা সে খায়। তবে মুরগীর কলিজা একটু কম পছন্দ করে। আর তার খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে আর একদিন লিখব ইনশাআল্লাহ।

চলুন জেনে নিই কলিজা খাওয়ার উপকারি দিকগুলোঃ

- মাংসের তুলনায় কলিজার পুষ্টিগুণ কোনো অংশে কম নয়। কলিজায় রয়েছে নানা রকম ভিটামিন, আয়রন, ক্যালশিয়াম ছাড়াও আরো অনেক উপকারী

- মিনারেলস। কলিজায় থাকা ভিটামিন এ এবং বি আমাদের দৃষ্টিশক্তি ও মস্তিষ্কের বিকাশে সহায়ক।

- কলিজায় রয়েছে সেলেনিয়াম নামেরএকটি জরুরি উপাদান যা ক্লোন ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে হেল্প করে সেলেনিয়াম শ্বাসকষ্ট, হাঁপানি, ছোট-বড় সংক্রমণ, শরীরের গাঁটে গাঁটে ব্যথা, কৃমির সমস্যাকে নিয়ন্ত্রণে আনতে সাহায্য করে।

- কলিজায় রয়েছে জিঙ্ক, যা জ্বর, টনসিলাইটিস, সর্দি-কাশি সৃষ্টিকারী জীবাণুর বিরুদ্ধে শরীরে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

- এর কোলাজেন ওইলাস্টিন আমাদের শরীরের শিরা-উপশিরায় রক্ত প্রবাহ সহজ ও স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করে।

- শরীরে রক্তের পরিমান কমে গেলে, নিয়মিত কলিজা খেলে রক্তের পরিমান বৃদ্ধি পায়।

- তবে যাদের উচ্চ রক্তচাপ বা হার্টের সমস্যা রয়েছে, তাদের মুরগির কলিজা না খাওয়াই ভালো।

এই লেখকের সব লেখা পড়ুন নিচের লিংক থেকে।
www.royalbangla.com/Nutritionist.Iqbal

লেখক

পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন।
চেম্বারঃ
সার্জিস্কোপ হাসপাতাল, ইউনিট-২, কাতালগঞ্জ, চট্টগ্রাম। প্রতি শুক্রবার থেকে বুধবার, সন্ধ্যা ৭ঃ০০ টা থেকে রাত ১০ঃ০০ টা পর্যন্ত।
সিরিয়ালের জন্যঃ ০১৭৬৪-৭৮৬৭৫৩
অনলাইন সেবা পাওয়ার জন‌্য
হোয়াটস এ‌্যাপ নম্বর-01533843123
লেখকের সাথে যোগাযোগ করতে নিচের ফেসবুক পেইজে ক্লিক করুন
www.facebook.com/Nutritionist.Iqbal

  1. royalbangla.com এ আপনার লেখা বা মতামত বা পরামর্শ পাঠাতে পারেন এই এ‌্যড্রেসে royal_bangla@yahoo.com
পরবর্তী পোস্ট

খিচুড়ী কি আসলেই পুষ্টিকর খাবার??


.

নিয়মিত গাজর খাওয়ার উপকারীতা


রয়াল বাংলা ডেস্ক
.

চর্বি জাতীয় খাবার মানেই খারাপ কিছু নয়- দেখুন কিছু স্বাস্থ‌্যকর দরকারী বাঙালি চর্বি জাতীয় খাবার


রয়াল বাংলা ডেস্ক
.

চোখের স্বাস্থ‌্য ভাল রাখতে যেসব খাবার খাওয়া জরুরী


ডায়েটিশিয়ান সিরাজাম মুনিরা
.

যে ১০টি কারণে টকদই খাবেন?


পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী
.

সময় অসময়ে মন খারাপ থাকলে যা করনীয়


পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী
.

চীয়া খাবেন না তোকমা খাবেন?


পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী
.

আপনি জানেন কী শসা মানবদেহের জন্য কতটা দরকারি ?


Dietitian Shirajam Munira
.

রোজ একটি আপেল কেন খাবেন


জয়তী মুখার্জী
.

আলু খেলে কি মোটা হয় ?


পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী
.

আপনি কি নিজের অজান্তে আয়রন এর অভাবে ভুগছেন ?


পুষ্টিবিদ জয়তী মুখার্জী

ড্রিপ্রেশন ম্যানেজমেন্টে পরিবার বা প্রিয়জনের ভূমিকা

জিয়ানুর কবির,ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিষ্ট
ডিপ্রেশনের চিকিৎসায় মেডিসিন ও সাইকোথেরাপী দুই ধরনের চিকিৎসা পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়। বিষন্নতার মাত্রা অল্প হলে শুধুমাত্র সাইকোথেরাপি দিয়ে চিকিৎসা করলে ভালো হয়ে যায়।....
বিস্তারিত

কেন হাসবো???

পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন,পুষ্টি কর্মকর্তা
কর্মব্যস্ত জীবনে আমরা যেন হাসতেই ভুলে গেছি। সারাদিন নিজেদের কাজগুলোই সঠিকভাবে করতে পারিনা, তাহলে হাসি আসবে কোথাথেকে? সকাল ৮ টায় অফিসে বের হই আর বাসায় আসি রাত১০ টায়.....
বিস্তারিত

হার্টের জন্য উপকারী টমেটো !!!

পুষ্টিবিদ মোঃ ইকবাল হোসেন,পুষ্টি কর্মকর্তা
টমেটো অনেকের কাছে অনেক মজাদার ও প্রিয় একটি ফল। কাঁচা, পাকা, রান্না করে বা রান্না ছাড়া যেকোনো ভাবে আমরা অনেক মজার সাথে এই ফল খেতে পারি। .....
বিস্তারিত

কিভাবে সমালোচনা সহ্য করবেন?

জিয়ানুর কবির,ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিষ্ট
সাধারণত যে কোন মানুষের জন্য সমালোচনা সহ্য করা কঠিন। তবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের সমালোচনা সম্মুখীন হওয়া খুবই স্বাভাবিক বিষয়।....
বিস্তারিত